গোধূলী_বেলার_স্মৃতি (Unexpected story) পর্ব- ১৩

0
3912

গোধূলী_বেলার_স্মৃতি (Unexpected story)
পর্ব- ১৩
#Jannatul_ferdosi_rimi (লেখিকা)
ছোট সাহেব আমার কোমর টেনে নিজের সাথে আমাকে আবদ্ধ করে ফেলেন। রুদ্রিকের এমন কান্ডে রুদ্রিকের সব বন্ধুরা অবাক। সাদি মিটিমিটি হাঁসছে।কাজলের প্রতি রুদ্রিকের এতোটা জেলাসির কারণ তারা ঠিক বুঝতে পারছে নাহ। শোভন হাতের গিটার টা রেখে বলল,
“সত্যি! রুদ্রিক ঠিক কী চায় তা বুঝতে পারছি নাহ। ”

—“রুদ্রিকের দিনের পর দিন কাজলকে নিয়ে পসেসিভ হয়ে উঠছে ।”

পলকের কথায় তন্ময় সায় দিয়ে বলে,

“আমি জাস্ট অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। সেদিন রুদ্রিক কীভাবে জেনির সাথে ব্যবহার করলো। তিনদিন ধরে জেনি ভার্সিটিতেও আসছে নাহ। ”

ইথান কিছুক্ষন ভেবে বলে,

” আমার মনে হয় রুদ্রিক লাইক কাজল।”

শোভন চট করে বলে,

“ইম্পোসিবাল!”

——“রুদ্রিকের যা অবস্হা দেখছি। সব কিছুই পসিবল।”

পলকের কথায়
শোভনার কিছুটা মিয়ে যাওয়া সুরে বলল,

“আমি সত্যি বুঝতে পারছি নাহ। সামনে কী হবে।

স্পিকারে হাল্কা মিউজিকে গান বেজে উঠে,

“Aisa laga mujhe pehli dafaa
Tanha main ho gayi yaara

Ho.. aisa laga mujhe pehli dafaa
Tanha main ho gayi yaara
Hoon pareshan si main
Ab ye kehne ke liye
Tu zaroori sa hai mujhko zinda rehne ke liye
Ho.. tu zaroori (tu zaroori)
sa hai mujhko (sa hai mujhko)
zinda rehne ke liye (zinda rehne ke liye)

ছোটসাহেব আমার হাতের সাথে নিজের হাত মুষ্টিবদ্ধ করে। চারদিকে গানের বিভিন্ন স্টেপ করতে থাকেন। আমিও উনার সাথে তাল মিলিয়ে গানের স্টেপ্স গুলো করার চেস্টা করতে থাকি।

তখনি সেখানে জেনি চলে আসে। রুদ্রিক ও কাজলকে এতোটা কাছে দেখে সে তাড়াতাড়ি দরজার আড়ালের চলে যায়। এই কাজল সামান্য ড্রাইভারের মেয়ের জন্যে-ই’, রুদ্রিক তার গাঁয়ে হাত তুলেছে। জেনি নিজের হাত মুষ্ঠিবদ্ধ করে ফেলে। প্রচন্ড রাগ হচ্ছে তার। এইভাবে রুদ্রিক ও কাজলকে একসাথে দেখে। নাহ জেনি এখন কিছুতেই নিজের মাথা গরম করবে নাহ। ঠান্ডা মাথায় যা করার করতে হবে। জেনি দূর থেকে তন্ময়, পলক, শোভন ও ইথানকে ইশারা করে তার সাথে দেখা করতে।

(লেখিকাঃ জান্নাতুল ফেরদৌসি রিমি)

জেনির ইশারায় তারা সবাই আস্তে আস্তে প্যাক্টিস রুম থেকে চলে যায়।

সিথি ও সাদি মুগ্ধ হয়ে যাচ্ছে দুজনের ডান্স দেখে। কত সুন্দরভাবে দুজন গানের প্রতিটি স্টেপ পূরন করে যাচ্ছে।

সাদি সিথিকে মৃদ্যু ধাক্কা দিয়ে বলে,

“তোমাকে এখানে আর থাকতে হবেনা। চলো ওদের আপাতত একা ছেড়ে দেই। ”

সিথি মুখটা ফুলিয়ে বলে,

“ওদের কত্ত ভালো লাগছে। আরেকটু দেখে যাইনা?”

সাদি নিজের চশমা ঠিক করতে করতে বলল,

“সত্যি সিথি তোমার আর বুদ্ধি হবে নাহ। এখানে আর কাবিবের হাড্ডি হতে হবে নাহ। চলো আমার সাথে। লাইব্রেরিতে গিয়ে তোমার কিছু নোটস সমাধান করে দিবো। ”

পড়ার কথা শুনে সিথি মুখ শুকিয়ে ফেলে।

কথাটি বলেই সাদি সিথির হাত ধরে নিয়ে চলে যায়।

প্যাক্টিস রুমে একেবারে ফাঁকা হয়ে গিয়েছে। রুমে শুধু কাজল ও রুদ্রিক রয়েছে।
Dhadke aankhon mein dil mera
Jab qareeb aaun tere
Mm.. dekhoon main jab bhi aaina
Haan tu hi roobaroo rahe mere

Ishq ki mauj mein aa
Aaja behne ke liye
Tu zaroori (tu zaroori)
sa hai mujhko zinda rehne ke liye
aa.. tu zaroori (tu zaroori)
sa hai mujhko (sa hai mujhko)
zinda rehne ke liye (zinda rehne ke liye)
Tu zaroori..

রুদ্রিক কাজলেকে পিছন দিয়ে ঘুড়িয়ে কাজলের ঘাড়ে নিজের থুত্নি রেখে গানের সাথে তাল মিলিয়ে ডান্স করতে থাকে।

ছোট সাহেবের স্পর্শে আমার বুকের হার্ট ব্রিট থেমে যাবে বলে মনে হচ্ছে। উনি আমার এতোটা কাছে কখনো আসেননি। উনি কী বুঝতে পারছেন আমার আমার ভিতরে এক ঝড় বইয়ে যাচ্ছে। হয়তো উনারাও কিছু কিছু ফিলিংশ হচ্ছে।

গান বেঁজে চলেছে….

Maangu na koi aasmaan do sitaron ka jahaan
Banja tu mera humsafar na mujhe chahiye koi muqaam
Dil hi kaafi hai tera mere rehne ke liye

Tu zaroori sa hai mujhko zinda rehne ke liye
Ho.. tu zaroori (tu zaroori)
aa hai mujhko (sa hai mujhko)
zinda rehne.. (zinda rehne..)
Tu zaroori (tu zaroori)
sa hai mujhko
zinda rehne ke liye
Tu zaroori..

আমি উনার কাঁধে নিজের হাত রেখে গানের সাথে তাল মিলিয়ে ডান্সের স্টেপ করতে থাকি..।

উনি গানের তাল মিলাতে মিলাতে আমার চোখে গভীরভাবে দৃষ্টি নিক্ষেপ করে বললেন,

“ভালোলাগার অনুভুতির কত রং কাজল তাইনা? ”

—-“যেমন? ”

—–“এইযে ধর তোর কাছে এলে, আমার অদ্ভুদ্ভাবে ভালোলাগা কাজ করে। এর ঠিক কী কারণ কাজল?”

আমি উনার প্রশ্নের ঠিক কী উত্তর দিবো। বুঝতে পারছি নাহ। মাথা নিচু করে আস্তে করে বললাম,

—–“হঠাৎ এই প্রশ্ন?

আমার কথায় ছোট সাহেব নিজের বাঁকা দাঁতের হাঁসি দিয়ে বললেন,

“এই উত্তরগুলো তুই আমাকে জিজ্ঞাসা করছিস কাজল? এই উত্তরগুলে তো তোর জানার কথা। ”

—-“কিছু কিছু উত্তর আমার কাছে থাকেনা। এই যে ধরুন এই উত্তর আমার কাছে নেই। ”

উনি আমার গালে নিজের হাতের আলতো স্পর্শ দিয়ে বললেন,

“আমার চোখের গভীরে অতলভাবে ঢুবে গেলে হয়তো বুঝতে পারবি। তুই-ই’ তো বলিস চোখ কখনো মিথ্যে বলেনা। ”

আমি নিজের দৃষ্টি সরিয়ে ফেলি। উনি আমাকে গানের তালে পিছনে ঘুড়িয়ে আমাকে নিজের সাথে মিশিয়ে ফেললেন। উনার আমার মাথা উনার বুকে গিয়ে ঠেকে যায়।

উনি নিজের ঠোটটা আমার কানের কাছে গিয়ে ফিসফিস কন্ঠে বললেন,

” তোর নজর সরে গেলো কাজল। এর মানে আমি কী ধরে নিবো? তোর আমার চোখে চোখ রাখার সাহস নেই। আর মানুষ তখনি-ই’ চোখে চোখ রাখতে পারেনা। যখন সে কিছু লুকানোর চেস্টা করে। তুই কী লুকানোর চেস্টা করছিস?”

আমি খানিক্ষন চুপ থেকে বললাম,

“হয়তো নিজের অনুভুতি লুকানোর প্রচেস্টা করছি। ”

—-“কেনো এতো বৃথা চেস্টা? ”

—“আপনি কেনো করেন? ”

উনি কিছুটা অস্হিরতা নিয়ে বললেন,

—–“আমি তো নিজের অনুভুতি গুলো ঠিক-ঠাক সাজিয়ে গুছিয়ে-ই’ বলতে পারছি নাহ কাজল। অনেক কিছু বলতে চাই আমি। কিন্তু ঠিক কি চাই? তা নিজেও বুঝতে পারছি নাহ। মাঝে মাঝে এমন কিছু আচরন করে বসি। তার সঠিক কারণ নিজেও জানিনা। ”

কথাটি বলে’ই উনি আমার কানে ঠোটের আলতো স্পর্শ দিলেন। আমি মৃদ্যু কেঁপে উঠলাম।

রুদ্রিক জানেনা এই কাজটি সে কেনো করলো । রুদ্রিকের দ্রুততার সাথে প্যাক্টিস রুম থেকে বেড়িয়ে গেলো।

আমি এখনো সেখানে ঠায় দাঁড়িয়ে আছি। উনার কথাগুলো আমার কানে ভাজছে।

________________

দিয়া নিজের গাঁয়ে একটা শাড়ি জড়িয়ে বলে,
“এই শাড়িতে আমাকে কেমন লাগবে?”

লাজুক মুগ্ধ হয়ে বলে,

“অনেক সুন্দর লাগবে। তার সাথে যদি আপনি কানে বড় বড় ঝুমকো এবং ঠোটে ঘাড়ে লিপষ্টিক পড়েন। আপনাকে আরো সুন্দর লাগবে। ”

লাজুকের কথায় দিয়া কিছুটা লজ্জা পেলো। লাজুক এইবার কিছুটা ঘোর লাগা কন্ঠে বলে,

“লজ্জা পেলে আপনাকে আরো সুন্দর লাগে দিয়া ম্যাম।”

লাজুকের কথায়,দিয়ার নাক যেনো লজ্জায় আরো লাল হয়ে যাচ্ছে। যা লাজুকের চোখে এড়ালো নাহ।লাজুকের মুগ্ধতার দৃষ্টি নিয়ে, দিয়ার লজ্জামাখা মুখখানা পর্যবেক্ষন করছে।

দিয়া কোনোরকম বলে উঠে,

“আমাদের দেরী হচ্ছে। যেতে হবে। ”

কথাটা বলে দিয়া গটগট করে গাড়ির দিকে পা বাড়ালো।

লাজুক হাঁসলো। সত্যি আজকে দিয়াকে সে লজ্জাকর পরিষ্হিতিতে ফেলে দিয়েছে।

—-“আরে সেল্ফি কুইন মেম! আমার জন্যে দাঁড়ান। আমার তো আপনার মতো গাড়ি নেই। আপনার গাড়ি দিয়ে-ই’, আমাকে অফিসে যেতে হবে।”

দিয়া পিছনে ঘুড়ে বলে,
—“তাড়াতাড়ি আসুন। ”
লাজুক মুঁচকি হেঁসে শপিং ব্যাগগুলো হাতে নিয়ে, গাড়ির দিকে পা বাড়ালো।।

______________

জেনি ফাংশনের দিনে কাজলকে অপদস্ত করার একটা বড় প্ল্যান করে ফেলেছে। জেনির এইরকম ভয়ংকর প্ল্যানের কথা শুনে, রুদ্রিকের বন্ধুরা সবাই অবাক হয়। ইথান উঠে দাঁড়িয়ে বলে,

“এইসব আমি করতে পারবো নাহ।”

শোভন ও কিছুটা ভেবে বলে,

“হ্যা এইটা করা অন্যায় হবে। আমরা এইরকম করতে পারবো নাহ। ”
জেনির কিছুটা নরম সুরে বলে,

“ওই মেয়েটির জন্যে রুদ্রিক আমাকে অপমান করলো আর তোরা তার বদলা নিতে আমাকে সাহায্য করবি নাহ। ”

পলক বলে উঠে,

“আমরা মেয়েদের সম্মান করি। তাই কাজলের সম্মান -হানি হোক এমন কাজ আমরা কিছুতে-ই’ করবো নাহ। ”

—-“এই তোরা আমার বেস্ট ফ্রেন্ডস? আমাকে একটু সাহায্য করবি নাহ? ”

জেনির কথায় তন্ময় উঠে দাঁড়িয়ে বলে,

“আমরা তোর ভালো বন্ধু বলে’ই তোকে এই খারাপ কাজে তোকে হেল্প করবো। আর তোকে বলে দিচ্ছি এইসব বাজে কাজ করার কথা তুইও বাদ দিয়ে দেয়।”,

কথাটি বলে তন্ময়, শোভন, ইথান ও পলক চলে যায়।

জেনি নিজের হাতে থাকা ফুলের বাস্কটা টা ছুড়ে ফেলে।

—-” আমাকে জ্ঞান দিচ্ছে দিতে এসেছে। দরকার নেই ওদের সাহায্যের। আমিও আমার প্ল্যানটা সাকসেস করবো। কারো সাহায্য লাগবে নাহ। ”

কথাটি বলেই জেনি শয়তানি হাঁসিতে মেতে উঠে।

________________

অন্যদিকে আমি পড়ার টেবিলে বসে পড়ার মনোযোগ দিতে-ই’, পারছি নাহ। আমার মন শুধু কেমন ‘ছোট সাহেব! ছোট সাহেব ‘ করছে। উনার প্রত্যেকটা কথায় আমার শুধু ভাবাচ্ছে। উনার ঠোটের আলতো স্পর্শে যেনো আমার শরীরে আলাদা শীহরন বয়ে গিয়েছিলো। আচ্ছা আমার কী হয়েছিলো? আমি কেনো উনাকে বাঁধা দেয়নি? তাহলে আমিও কী? নাহ নাহ এইটা হতে পারেনা। কিন্তু একটা কথা তো মানতে হবে,আশ্রমের কথাটা জানার পর থেকে উনার প্রতি আমার যেমন সম্মান বেড়ে গিয়েছিলো তেমনি আমার মনে সৃষ্টি হয়েছিলো এক রাশ ভালোবাসা। তখনি হুট করে ছুটকি হেঁসে বলল,

“আপাই দেখো তোমার গোলাপের মতো গালগুলো কেমন লাল হয়ে গিয়েছে। ”

আমি ছুটকির কথা শুনে তাড়াতাড়ি আয়নায় নিজেকে ভালো করে দেখলাম। আমার গাল সত্যি লাল হয়ে গিয়েছে। তার মানে?

“আম ব্লাশিং। ছোটসাহেবের কথা ভাবলে আমি এতো লজ্জা পাচ্ছি কেন? ”

জানিনা এর উত্তর।
আমি হুট করে ছোট সাহেবকে এমন এক মেসেজ দিলাম, যার কারনে সঙ্গে সঙ্গে ছোট সাহেব আমাকে ফোন দিলেন।

চলবে….কী?

বাকীটা আগামী পর্বে….

(কেমন হয়েছে কমেন্ত করে জানাবেন কিন্তু😋)

লেখিকাঃ জান্নাতুল ফেরদৌসি রিমি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here