গোধূলী_বেলার_স্মৃতি (Unexpected Story) পর্ব-৩১ (বিবাহ বিভ্রাট)

0
3387

গোধূলী_বেলার_স্মৃতি (Unexpected Story)
পর্ব-৩১ (বিবাহ বিভ্রাট)
#Jannatul_ferdosi_rimi (লেখিকা)

–“শুভ্ররাঙাপরী কি জানে? তার মায়াবী মুখখানা না দেখতে পেয়ে তার রুদ্রিকে হাল বেহাল হয়ে যাচ্ছে।”
সে কি জানে? তার রুদ্রিকের বুকের ভিতরে জমে থাকা ভালোবাসার অগ্নিশিখা দাও দাও করে জ্বলছে শুধুমাত্র তার প্রিয়তমাকে দেখার প্রয়াশে। রুদ্রিকের চোখে আজ অজস্র তৃষ্ণা শুধুমাত্র তার প্রিয়তমাকে ঘিরে। উদ্দেশ্য একটিবার চোখের দেখার দেখতে পাওয়া। ”
রুদ্রিকের কথা শুনে লজ্জায় আমার গালদুটো যেনো লাল হয়ে যাচ্ছে। ফোনের ওইপাশ থেকে রুদ্রিক কিছুটা নেশাক্ত কন্ঠে বলে উঠে,
–“আমি জানি কাজল এখন তোমার লাল টকটকে গোলাপের মতো গালগুলো লজ্জায় লালা আভা ধারণ করেছে। আয়নার সামনে নিজেকে একপলক তাঁকিয়ে দেখো তোমার রুপের প্রতিটা কণা যেনো আয়নায় খুব নিখুঁতভাবে ধরা দিচ্ছে। ”

ছোটসাহেবের মুখে ‘তুমি ‘ ডাকটি শুনে আমার মনে ভালোবাসার সুর বয়ে গেলো। আমি আয়নায় না তাঁকিয়ে-ই’ বললাম,

—“রুদ্রিক থাকতে তার ‘শুভ্ররাঙাপরীকে ‘আয়না দেখতে হয়না। রুদ্রিকের শুভ্ররাঙাপরীর রুপকে আয়নার থেকেও নিখুঁতভাবে বর্ননা করার ক্ষমতা রাখেন আপনি রুদ্রিক সাহেব। ”

রুদ্রিক হাঁসে। যাকে বলে মন ভোলানো হাঁসি। সেই হাঁসির শব্দে আমার কানে বেঁজে চলেছে।

তনয় আজ ঠিক করেছে সে সিলেটে ফিরে যাবে। সে অনুযায়ী সে নিজের সবকিছু প্যাক করে ফেলেছে।
কাজলরেখা তো তাকে এখন চায়না। কাজলরেখা তো রুদ্রিককে ভালোবাসে,তাহলে সে কেনো শুধু শুধু
কেনো কাজলের ভালোবাসার মাঝখানে বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে?
নিতিয়া শুধু দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সবকিছু দেখে যাচ্ছে।
সে জানে তার তনয়ের ভাইয়ের সবকিছু মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে,কিন্তু কি আর করার? সময়ের সাথে সাথে সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে কথাটি ভেবে-ই’ নিতিয়া এগিয়ে এসে বলে,
—“ভাইয়া আমাদের বাস চলে আসবে চলো। ”
তনয় নিজের কাঁধের ব্যাগটা নিয়ে বলে,
—“চল। ”

কথাটি বলে তনয় বেড়িয়ে যাবে তখনি মতিউর রাহমান বাড়িতে ঢুকে বলে,

–“তনয় বাবা তোমরা কোথায় যাচ্ছো?

—-“সিলেটে চলে যাচ্ছি। মিঃ রুদ্রিক এবং কাজল একেঅপরকে ভালোবাসে,আপনি নিশ্চই শুনেছেন।তাহলে শুধু শুধু আমরা এখানে থাকবো বা-ই’ কেন?”

নিতিয়ার কথা শুনে মতিউর রাহমান গম্ভীর সুরে বললেন,

—-“সবকিছু-ই’ আমি শুনেছি। আমার মেয়ে ছেলেমানুষি করছে।বাবা হয়ে নিজের মেয়ের ছেলেমানুষিকে প্রশ্রয় দেওয়ার কোনো মানে-ই’ হয়না। ”

তনয় বলে উঠে,

—“এইসব কি বলছেন আংকেল? কাজলের ভালোবাসাকে অন্তত ছেলে-মানুষির সাথে তুলনা করে, কাজলের ভালোবাসাকে ছোট করবে নাহ। ”

কাজলের বাবা এইবার কিছুটা অসহায় কন্ঠে বললেন,

—- আফজাল শেখ আমার বড় সাহেব হওয়া পর্যন্ত ঠিক আছে,কিন্তু বেয়াই হওয়াটা একেবারে-ই’ অসম্ভব। আফজাল শেখের সাথে আমার মালিক এবং সামান্য কর্মচারীর সম্পর্কে। আমি জানি নিজের সীমার বাইরে কোনো কিছু-ই’ ভালো নয়। আমি নিজের সীমা লঙ্গন করতে চাইনা। ”

—-“কিন্তু আংকেল….

তনয়ের কথার মাঝে-ই’ মতিউর রাহমান বললেন,
“আমি বাস্তবতাকে খুব কাছ থেকে দেখেছি তনয় বাবা। বাস্তবতা খুব কঠিন। আমার মেয়েটা এখনো পুরোপুরিভাবে বাস্তবতাকে চিনতে পারেনি। ছোটসাহেব আমার মেয়েকে কিছুতে-ই’ ভালোবাসতে পারেনা। ছোটসাহেব বড়লোকের ছেলে হওয়া সুবাধে
নানারকম মেয়েদের সাথে টাইম পাস করে,হয়তো আমার মেয়েকেও সে টাইম পাসের বস্তু মনে করেছে।কিন্তু বাবা হয়ে নিজের মেয়েকে টাইম পাসের বস্তু হতে কীভাবে হতে দেই?
(লেখিকাঃ জান্নাতুল ফেরদৌসি রিমি)
তাছাড়াও আমার মেয়ের সুপাত্র হিসেবে তনয় তুমি একদম ঠিক আছো। আমার মেয়ের এই ছেলেমানুষীকে আর প্রশ্রয় দিলে বিরাট বড় ক্ষতি হয়ে যাবে,তাই আমি চাইছি কালকের মধ্যে-ই’ তোমার এবং কাজলের কাবিন টা সেরে ফেলতে। তারপর না হয় তোমার বাবা-মাকে নিয়ে বড় করে বিয়ের অনুষ্টান করবো।

তনয় চমকে গিয়ে বলে,

—-” বিয়ের কাবিন তাও কালকে? ”
—“হুম। ”

—“কিন্তু আমি জানি কাজলরেখা রুদ্রিককে ভালোবাসে। কাজলরেখা কিছুতে-ই’ রাজি হবে নাহ।”

—-“আমি কাজলকে রাজি করাবো। ”

মতিউরের কথা শুনে তনয় মাথা নিচু করে বলে,

—-“ক্ষমা করবেন আংকেল। কাজলের অনুমতি ব্যতিত এই বিয়ে সম্ভব নয়। ”

মতিউর রাহমান তনয়ের হাত ধরে বলে,

—“আমাকে এইভাবে আশাহত করো নাহ তনয়। তুমি তো বুঝতে পারছো কী হতে পারে? তুমি কী জানো ছোটসাহেবের সাথে আরেকটি বড় বিসনেজম্যান ইকবাল শেখের মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়েছে? সামনের মাসে তাদের এন্গেজমেন্ট।”

—-“ওয়াট? ” (তনয় বলল)

—“ছোটসাহেব আমাকে মেয়েকে ব্যবহার করেছে।
শেষে শুধু আমার মেয়েটা-ই’ কষ্ট হবে। তাই সময় থাকতে আমাদের এইসব কিছু আটকাতে হবে। অনেক আশা নিয়ে এসেছি তোমার কাছে। আমাকে তুমি ফিরিয়ে দিও নাহ বাবা। ”

মতিউর রাহমানের অসহয় মুখের দিকে তাঁকিয়ে
তনয় মাথা নাড়িয়ে ‘হ্যা’ বলে। মতিউর রাহমান নিশ্চিন্ত হয়।

এদিকে,

রুদ্রিক নিজের হাঁসি থামিয়ে বললো,
—-“আচ্ছা আমাদের বিয়ের পর বাসররাতের প্ল্যান কী হবে? ”

উনার এইরকম উদ্ভুট প্রশ্নে আমি খানিক্টা মেকি রাগ দেখিয়ে বললাম,

—“সবসময় আপনার শুধু দুষ্টুমি দূর ভালো লাগে নাহ। কখন না কখন বিয়ে হবে তার ঠিক নেই আর আপনি আছেন নিজের বাসর রাত নিয়ে। ”

উনি নিশব্দে হেঁসে কিছুটা আস্তে করে বললেন,

—-” সবকিছু-ই’ ভাগ্য কাজল । কখন কি হয়ে কে কি বলতে পারে বল? জীবন তো অদ্ভুদ। জীবন মুহুর্তে-ই’ নিজের গতি পরিবর্তন করতে পারে।

রুদ্রিকের এই কথাটা আমার কানে লাগলো খুব করে। আমি কিছু বলবো তার আগে-ই’ রুদ্রিক বলে উঠে,

—“কাজল আমার খুব ইচ্ছে আমাদের যখন বিয়ে হবে,তখন আমাদের বাসররাতে তুই ঠোটে ঘাড়ো করে লিপ্সটিক পড়বি সাথে সেই শুভ্র রংয়ের শাড়ি। তোর লাল টকটকে গালগুলোর সাথে একদম মানাবে।
চোখে একদম কাজল দিবি নাহ। সৃষ্টিকর্তা মনে হয় অনেক সুন্দর করে যত্নসহকারে তোর চোখে সৃষ্টি করেছে। তাই তোর আখিজোড়ায় কাজল পড়ার প্রয়োজনীয়তা নেই। ”

আমি নিজের চোখগুলো বন্ধ করে শুধু অনুভব করছি।

রুদ্রিক আরো কিছু বলতে যাবে তার আগে-ই’ একজন স্টাফ রুমে এসে বলে,

—“স্যার আপনার খাবার টা। ”

রুদ্রিক বলে উঠে,

—“আপনি রেখে যান। ”

কাজল ফোনের ওইপাশ থেকে শাসনের সুরে বলে উঠে,

—“আপনি এখনো নিজের খাবার খাননি? এতো অনিয়ম করলে কীভাবে হয়? না খেয়ে কথা বলে যাচ্ছেন? ”

—“তোকে ফোন না করে ইনফর্ম না করলে তো
তুই টেনশনে করতে করতে নাজেহাল হয়ে যেতি।

রুদ্রিক বিকাল বেলাতে-ই’ চট্টগ্রামে পৌছে গিয়েছে।
আপাতত রুদ্রিক একটি ফাইভ স্টার হোটেলে উঠেছে।

চট্টগ্রামের এসএস কম্পানির সাথে-ই’ আজ রাতে-ই’ তাদের মিটিং আছে।

আমি বলে উঠলাম,

—-“আপনার মিটিং কখন? ”

—-“আজ রাতের দিকে। মিটিংয়ের দায়িত্ব আমার হাতে একবার মিটিংটা সাকসেসফুল হয়ে গেলে আমাদের কম্পানি বিরাট বড় একটা ওর্ডার পাবে।”

—-“যেহুতু রাফসিন শেখ রুদ্রিক মিটিংয়ের দায়িত্বে আছে। তাহলে নিশ্চই সাকসেসফুল হবে। কিন্তু আপনি নিজের টাইম টু টাইম খাবার খেয়ে নিবেন।”

রুদ্রিক বলে উঠে,

—“ম্যাম আপনি একদম চিন্তা করবেন না। আমি ঠিক মতো খেয়ে নিবো। ”

আমি আরো কিছু বলতে যাবো তখনি আমার রুমে প্রবেশ করেন।

—“রুদ্রিক বাবা এসেছে। আমি রাখছি বায়। অল দ্যা বেস্টা। ”

রুদ্রিক মু্ঁচকি হেঁসে বলে,

—“ওকে বায়। ”

কথাটি বলে আমি ফোন কেটে দেই।

বাবা আমার কাছে এগিয়ে এসে বললেন,

—“কার সাথে কথা বলছিলি তুই নিশ্চই ছোট সাহেবের সাথে? ”

—-“হুম। ”

বাবা রাগে চিৎকার করে বললেন,

—-“তুই কী রুদ্রিককে ভালোবাসিস? ”

বাবার চিৎকারে মা ও ছুটকি ছুটে চলে আসে।

আমি মাথা নিচু করে বলে উঠি,

—-“হ্যা আমি ছোটসাহেবকে ভালোবাসি। ”

—-“তোর একটিবার কথা বলতে মুখে আটাকালো নাহ। শেষে কিনা মালিকের ছেলের সাথে প্রেম? ছিহ কাজল ছিহ। তুই কি ভাবতে পারছিস? ছোটসাহেব তোকে ব্যবহার করছে দিনের পর দিন।”

—-“বাবা তুমি আর যাই বলো ছোটসাহেবের ভালোবাসাটাক ছোট করো নাহ। উনি যেমন-ই’ হোক নিজের ভালোবাসাকে যথাযথ মর্যাদা দিতে জানে উনি। ”

—-“নিজের বাবা-মায়ের সামনে ভালোবাসার কথা বলছিস? একটুও কী লজ্জা নেই তোর?”

আমি কটাক্ষ করে উত্তর দিয়ে বললাম,

—-“ভালোবাসা খুব পবিত্র বাবা। আমার কিসের লজ্জা থাকবে? আমি তো লজ্জা করার মতো কিছু করেনি। ভালোবেসেছি অন্যায় করেনি। ”

সঙ্গে সঙ্গে বাবা নিজের সর্বশক্তি দিয়ে আমার গালে চর বসিয়ে দেন। আমি ছিটকে মাটিতে বসে পড়ি। বাবার চরের তীব্রতা এতোটা-ই’ ছিলো যে, আমার ঠোট বেয়ে রক্ত গড়িয়ে পড়ছে।

বাবা দ্বিগুন চিৎকার করে বললেন,

—“তোকে স্বাধীনতা দিয়েছিলাম বলে আজ তোর এই পতন ঘটেছে। বাবা হিসেবে তা আমি মেনে কীভাবে নিবো? আমি এখন এই ভুল আর করবো নাহ। কাজলের মা তোমার মেয়েকে প্রস্তত হতে বলো। কালকে তনয়ের সাথে তোমার মেয়ের কালকে বিয়ে। এই বিয়ে তোমার মেয়েকে যেকোনো মূল্যে করতে-ই’ হবে। কথাটি যেনো কানে ভালো করে ঢুকিয়ে নেয়।
(লেখিকাঃ জান্নাতুল ফেরদৌসি রিমি)
বাবার কথা শুনে আমি একপ্রকার স্তব্ধ হয়ে গেলাম। কালকে আমার বিয়ে?

কথাটি বলে কাজলের বাবা গটগট করে রুম থেকে বেড়িয়ে গেলেন। কাজলের মা ও তার পিছনে ছুটতে শুরু করলেন।

চলে যাওয়ার আগে কাজলের বাবা রুমের দরজা বন্ধ করে দিয়ে যায়।

কাজলের সাথে তনয়ের বিয়ে কথাটি শুনে ছুটকির বুকের ভিতর কেমন যেনো করে উঠলো। তার কেনো যেনো মানতে কষ্ট হচ্ছে তনয় ভাইয়ের সাথে কাল তার আপাইয়ের কথাটি ভেবে ছুটকি ও দৌড়ে গিয়ে তার রুমের দরজা বন্ধ করে দেয়। তার কেনো যেনো খুব কান্না পাচ্ছে।

কাজলের বাবা বারান্দায় দাঁড়িয়ে আছেন।

কাজলের মা কাজলের বাবার কাঁধে হাত রেখে বললেন,
—“মেয়েটা বোধহয় ছোটসাহেবকে সত্যি ভালোবাসে। তুমি মেয়েটাকে এইভাবে ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়েটা না দিলেও পারতে। ”

কাজলের বাবা তার স্ত্রীর দিকে ছলছল চোখে তাঁকিয়ে বলে,
—-“আজ প্রথমবার নিজের মেয়ের গাঁয়ে হাত তুলেছি। আমার কী কম কষ্ট হচ্ছে বলো? আমি তো বাবা হিসেবে নিরুপায়। নিজের মেয়ের ভালোর জন্য হলেও আমাকে কঠোর থাকতে হবে। তুমি জানো? আজকে ইশানি মেম আমাকে ডেকে পাঠিয়ে কি বলেছিলেন?

—-“কি বলেছেন? ”

—“তাহলে শুনো। আজ ইশানি ম্যাম আমাকে নিজের কেবিনে ডেকে পাঠিয়েছিলেন তারপর…

—-“আমি সত্যি বিশ্বাস করতে পারছি নাহ আমার মেয়ে ছোট সাহেবের সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে আছে। ”

মতিউরের কথা শুনে ইশানি হেঁসে বলে,

—“এতো অবাক হচ্ছো কেন? তুমি-ই’ তো তোমার মেয়েকে রুদ্রিকের পিছনে লেলিয়ে দিয়েছো।যাতে এতো বিরাট সম্পত্তি তোমরা ভোগ করতে পারো।
রুদ্রিক যেহুতু বাড়ির একমাত্র ছেলে এই সম্পত্তি সব তো রুদ্রিকের-ই’। তোমাদের লোভিদের আমার খুব ভালো করে-ই’ জানা আছে। ”

মতিউর সাহেব আশাহত কন্ঠে বললেন,

—“যা ইচ্ছে তাই বলুন,কিন্তু লোভি বলবেন নাহ ইশানি ম্যাম। তাছাড়া দোষ তো শুধু আমার মেয়ের নাহ। ছোটসাহেব ও আমার মেয়ের সাথে সম্পর্কে জড়িয়েছেন। ”

ইশানি শেখ হু হা করে হেঁসে বলে উঠে,
—“রুদ্রিক হলো আফজাল শেখের একমাত্র ছেলে। কত মেয়ের সাথে-ই’ তো সে টাইমপাস করেছে৷ কাজল ও রুদ্রিকের কাছে টাইমপাসের একটি জায়গা মাত্র। ”

মতিউর উঠে দাঁড়িয়ে বললেন,

—“কি বলছেন কি? ”

ইশানি শেখ হেঁসে বললেন,

—“একদম ঠিক বলছি। তাছাড়া বিসনেজম্যান ইকবাল শিকদারের মেয়ের সাথে রুদ্রিকের সামনের মাসে এন্গেজমেন্ট। এখন তুমি ভেবে দেখো নিজের মেয়ের কি করবে। ”

মতিউর রহমান ভাবতে পারেনা সে এখন কি করবে।
তখনি তার তনয়ের কথা মনে পড়লো।

ইশানি শেখ মনে মনে হাঁসেন যাক কাজ হয়েছে তাহলে। বাকি কাজটা মতিউর নিজের হাতে-ই’ করবে।

________

কাজলের মা কাজলের বাবার কথা শুনে কিছুক্ষন থম মেরে বসে রইলো। কাজলের বাবা ঠিক-ই’ বলেছে। নিজের মেয়ের সুখের জন্যে হলেও বিয়েটা জরুরী।

বাবা চলে যেতে-ই’ আমি কোনোরকম উঠে দাঁড়িয়ে দ্রুত সহকারে ফোনটা হাতে নিয়ে রুদ্রিককে ফোন দিলাম। যেকরে-ই’ হোক রুদ্রিককে সবকিছু জানাতে হবে।

এদিকে,

রুদ্রিক নিজের টাই টা গলায় ভালো করে বেঁধে নেয়। কিছুক্ষন পরে-ই’ মিটিং শুরু হয়ে যবে। রুদ্রিকক কাউকে ফোন করে।

—–“জ্বী স্যার বলুন। ”

রুদ্রিক বলে উঠে,

—” যা যা করতে বলেছিলাম সব হয়ে গেছে তো? ”

————-
ওইপাশ থেকে এমনকিছু বললো যা শুনে রুদ্রিক কিছুটা বাঁকা বলে,

—“গুড ভেইরি গুড। আচ্ছা রাখছি।

টুট টুট টুট….।

রুদ্রিক ফোনটা কেটে সুইচড অফ করে দেয়। তারপর রহস্যময় হাঁসি দিয়ে মিটিং রুমে চলে যায়।

এদিকে আমি বার বার রুদ্রিকের নাম্বারে ফোন করে যাচ্ছি,কিন্তু রুদ্রিক ফোনটা-ই’ ধরছে নাহ। আমি রাগে ফোনটা ছুড়ে ফেলি। যা ভেঙে দুই টুকরো হয়ে যায়।
রুদ্রিক এদিকে ফোন ধরছে না ওদিকে কাল আমার বিয়ে। আমি কি করবো? কিচ্ছু বুঝতে পারছি নাহ।
দরজা টাও বন্ধ। ফোনটাও ভেঙ্গে গেলো। কোনো রাস্তা যে খোলা নেই আমার হাতে। আমার ঠোট বেয়ে রক্ত গড়িয়ে-ই’ পড়ছে। আমি ধপ করে মেঝেতে বসে দেয়ালে নিজের শরীর এলিয়ে দিলাম। আমি নিজের চুল খামছে ধরলাম। তনয় ভাইকে কিছুতে-ই’ বিয়ে করবো নাহ।

‘রুদ্রিক কোথায় আপনি? ”

কথাটি বলে আমি শব্দ করে কেঁদে উঠলাম।

বাকীটা আগামী পর্বে….
চলবে কী?
🙈আজকাল তো রিয়েক্ট দিতেও কিপটামি করেন
(হ্যালো বাচ্ছারা কেউ আগে-ই’ চিল্লাচিল্লি করিবেন নাহ। গল্পটা ইঞ্জয় করুন। আমার উপর ভরসা রাখুন।অনেক বড় কমেন্ট করেছে সো একটা ঘটনমূলক কমেন্ট করে দিয়েন খুশি হবো)
আসসালামুআলাইকুম 💙
লেখিকাঃ জান্নাতুল ফেরদৌসি রিমি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here