প্রেম_পাগলামি #নিহীন_রুবাইয়াত #পর্ব:২৮

0
245

#প্রেম_পাগলামি
#নিহীন_রুবাইয়াত
#পর্ব:২৮

স্যার চলে গেলেন আর আমি তো শকড উনি স্যারকে এসব বলেছেন কিন্তু উনি কিভাবে জানলেন??আমি মীরার দিকে তাকালাম ও দুষ্টু হাসি দিলো।বুঝে গেলাম মীরাই বলেছে।

–ওনাকে কে বললো মীরা যে স্যার আমার সাথে রুড বিহেভ করেছে??
–আমি কি জানি??
–তুই কি জানিস মানে??
–আরে নিহীন শোন উনি না যে সে মানুষ না,ক্যাম্পাসে কখন কি হয় উনি সব জানেন।আর তা ছাড়া উনি তোর আজ হেল্পও করলো অনেক।অবশ্য করবেই না কেন তুই তো তার স্পেশাল মানুষ।হিহিহিহহহহহ,(মীরা কথাটা বলেই চোখ টিপ দিলো)
অন্য টিচার চলে আসলো মনে মনে ভাবছি সত্যিই তো উনি স্যারের সাথে কথা বলেছেন,বুঝিয়েছেন বলেই তো আজ স্যার নিজের ভুলটা বুঝতে পেরেছে।স্যার চলে যাওয়ার পর,,
–মীরা অনেক ভেবে বুঝলাম অল ক্রেডিট গোজ টু হিম,উনি না থাকলে এতো কিছু হত না।
–ইয়েস নিহু,সৌভিক ভাই ছিলো বলেই স্যার আজ সবার সামনে তোকে সরি বললো,যে স্যার ভালো করে কথা তাই বলে না সে স্যার তোকে সরি বললো ভাবা যায়??তোকে একটা থ্যাঙ্কস বলা উচিত।
–থ্যাঙ্কস?
–হ্যা থ্যাঙ্কস।তাও যে সে থ্যাঙ্কস না কোন সুন্দর গিফট দিয়ে।
–গিফট কেন দেয়া লাগবে?উনি কে যে গিফট দিতে হবে??
–উনি তোর উডবি
–হাহ!!এসব হবে না বুঝলি।আমি তো জানি উনি সব মজা করেই বলেন।
–একদমি না।ভাই সিরিয়াস।
মীরা আমাকে রেখে চলে গেল আর আমি ভাবছি সত্যিইতো ওনার প্রতি আমারো তো টান আছে কোনএকটা আর তাছাড়া কাউকে একটা গিফট দেয়ায় যায়।এতে ক্ষতি নেই কোন।
–মীরা দাড়া,,আমাকে রেখে কয় যাস।

রাতের বেলা,,
–হ্যালো
–হুম কে??(ঘুম জড়িত কন্ঠে)
–কে মানে?আমি নিহীন??
–নি নিহীইইন,,ওহ সরি সরি নিহীপাখি আমি নাম খেয়াল করিনি।(ঘুম কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করলো মনে হলো)
–ঘুমাচ্ছিলেন?
–হ্যা ওই আর কি।আসলে ক্যাম্পাসে একটা নির্বাচন হবে তো তাই নিয়ে ব্যস্ত আছি।রাতে তাড়াতাড়িই ঘুমিয়ে পড়েছিলাম আজ,ভোরে উঠে আবার পড়া লাগে।
–কি ছেলে মাইরি?রাজনীতি ও করে আবার পড়ার কথাও ভাবছে?(আস্তে আস্তে)
–কিছু বললে?
–কই না তো কিছু না।আচ্ছা ঘুমান আপনি
–না না তুমি কথা বলো,সমস্যা নেই
–কোন ইম্পর্টান্ট কথা না ঘুমান।
–সিউর
–হান্ডেট পার্সেন্ট
–ওকে বাই।লাভ ইউ
–লা….(থেমে গেলাম)
–কি বলতে গেলে বুঝলাম না
–কিছু না।বাই

আমি কল কেটে দিলাম।
–শীট ম্যান কি বলছিলাম এটা আমি?আমি তো ওনাকে লাভ করি না।তাহলে?ভাগ্যিস উনি শুনিনি।শুনলে কি হতো?

ফোন রেখে শুয়ে পড়লাম।ভাবছি ওনার প্রতি আমার ফিলিংসটা কি আসলে?শাওন আর ওনার ভাস্যমতে উনি আমাকে লাভ করেন,ওনার ইদানিং বিহেভিয়ারেও কিছুটা বোঝা যায় কিন্তু আমি কি ওনাকে ভালোবাসি??অবশ্য উনি যে সত্যিই আমাকে ভালোবাসেন সেটারো বা প্রমান কি?ধুর এই প্রেম-ভালোবাসা এতো কানফিউজিং কেন?এসব না ভেবে ঘুমিয়ে পড়লাম।

আযানের সাথে সাথে ঘুম ভেঙে গেলো,ঘুম থেকে উঠে নামাজ পড়ে বিছানায় এসে বসলাম দেখি ওনার টেক্সট,
–“গুড মর্নিং”(ওনার মেসেজ দেখে বেশ ভালোই লাগলো।রিপ্লাই দেবো কি দেবো না ভাবছি।না দিয়েই দিই)
–“গুড মর্নিং”
–“থ্যাঙ্ক ইউ নিহীপাখি রিপ্লাইয়ের জন্যে এবার আমি সব কাজে মন বসাতে পারবো।তোমার সাথে কথা হয়েগেছে আজকের দিনটা ভালোই যাবে।আচ্ছা এখন আর কথা বলতে পারছি না।বিজি আছি প্লিজ রাগ করো না।বাই”

ওনার মেসেজ দেখে আমি হা।এই ছেলে কি সব সত্যিই বলে?আর সত্যি বললেও এইরুপ এতোদিন কোথায় ছিলো??না এনাকে নিয়ে ভাবতে গেলে আমি পাগল হয়ে যাবো।আমি ফোন রেখে ওয়ারড্রব থেকে একটা প্যাকেট বের করলাম।প্যাকেটটা কাল বাসায় এসে লুকিয়ে রেখেছি কারন এর ভিতরের শার্টটা যদি কেউ দেখে তাহলে ঝামেলা হবে।সবাই জানতে চাইবে এটা কার?আমি তো আর বলতে পারবো না এটা ওনার জন্যে কিনেছি।

ফ্লাশব্যাক গতকাল ভার্সিটি ছুটির পর:-
–দোস্ত ওনাকে তোর একটা গিফট দেয়া উচিত
–বলছিস?
–হুম
–আচ্ছা গিফট দেয়া তো প্রব্লেম না কিন্তু দেবো টা কি বল?
–আমি জানি তুই কি দিবি?
–তুই জানিস না মানে?আমাকে গিফট দে গিফট দে বলে পাগল করে দিচ্ছিস আর জানিস না কি দেয়া লাগবে?
–আমি কিভাবে জানবো আমার কি বি এফ আছে নাকি যে জানবো?
–তা আমার কি বিএফ আছে?
–আছে তো,সৌভিক ভাই।
আমি মীরার দিকে ভ্রু কুচকে তাকালাম।
–না মানে হতেও তো পারে কোন কালে।যায় হোক এসব বাদ দে।কি দেয়া যায় সেটা ভাব।
–হুম
কিছুক্ষন পর,
–নিহু পেয়ে গেছি?
–তাই?কি পেলি?(আমি খুব এক্সাইটেড হয়ে শুনলাম)
–তুই ভাইকে টেডি বিয়ার গিফট কর,দেখ কতো সুন্দর(ও হাত দিয়ে শপিং মলের একটা দোকানে ইশারা করলো)
আমি ওর দিকে ভ্রু কুঁচকে দাড়িয়ে আছি আর ও টেডিবিয়ার দেখায় ব্যাস্ত
–মীরা..
–….
–মীরাআআআআ(চিল্লিয়ে উঠলাম ওউ ভয়ে লাফিয়ে উঠলো)
–কিক কি কি হয়েছে চিল্লাছিস কেন?
–ওনাকে আমি টেডি গিফট করবো?হুম তো ক্ষতি কি?
–উনি কি মেয়ে যে ওনাকে টেডি গিফট করবো??
–তাতে কি?
–তাতে কি মানে?কোন ছেলেকে টেডিবিয়ার গিফট করে কেউ?
–করেনা??
–হাই আল্লাহ!!তুলে নাও এ মেয়ে পাগল হয়ে গেছে।

আমি আনমনে সাইডে তাকাতেই দেখি,এক কাপড়ের দোকানে আনুমানিক ৫০-৫৫ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা তার থেকে বয়সে আরেক্টু বড় হবে বৃদ্ধ লোকটির গায়ে শার্ট ধরে দেখছে আর দুজনি মুচকি মুচকি হাসছে।অনুমান করলাম ওনারা হাজবেন্ড-ওয়াইফ।এই বয়সেও দুজনকে খুব সুন্দর লাগছে।বৃদ্ধা মহিলাটি হাতের শার্টটা অন্য একটা ষার্ট নিলেন এটা দেখেই আমার মাথায় এসে গেলো ওনাকে কি গিফট দেয়া যায়।আমিও ওই দোকানটাই ঢুকে গেলাম তারপর অনেক বেছে বেছে অ্যাস কালারের একটা শার্ট নিলাম,সাইজে হবে কিনা জানি না।শপিং মল থেকে বের হতে যাবো কিন্তু মীররা জন্য হলো না।তার নাকি ওই টেডিববিয়ার কিনে দিতে হবে।প্রথমে দিতে চাইনি কিন্তু ওর জেদের কাছে বাধ্য হয়ে দেয়াই লাগলো।বাসায় এসেই ওই শার্টের প্যাকেট লুকিয়ে রাখি।

বর্তমানে:-
শার্টের প্যাকেটটা ব্যাগে ঢুকিয়ে নিলাম।ভার্সিটিতে এসে ওনাকে অনেক খুজলাম পেলাম না।একটা ক্লাস করে আবার খুজছি,একজনের থেকে জানতে পারলাম উনি ক্লাবে আছ।ক্লাবটা মূলত রাজনীতিক সভা,আলোচনার জায়গা।যাবো কি যাবো না ভবছি।
–নাহ যায়।কিই বা আর হবে??
যেই ভাবা সেই কাজ।মীরাকে নিয়ে চললাম ক্লাবের দিকে।মীরা তো খুব ভয় পেয়ে আছে।ও এসব অনেক ভয় পাই।আমার ভয় না লাগলেও খুব বেশি পছন্দ না এই দলাদলি।তাও যাচ্ছি।ক্লাবের বাইরে দুইটা জুনিয়র ছেলে দাড়িয়ে,আমাদের ভিতরে যেতে দেবে না।অনেকবার বলার পরেও যেতে দেবে না।কি আর করা শয়তানি বুদ্ধি কাজে লাগালাম সিনিয়র হওয়ার সুযোগ নিলাম।ভয় দেখিয়ে ভিতরে ঢুকলাম।ভিতরে ঢুকেই দেখি ওনারা বসে কি নিয়ে তর্কাতর্কি করছে।একটা ছেলে তো ওনাকে মারতে আসলো উনিও তেড়ে গেলেন,শিবলি ভাইও ওনার সাথে মারতে গেলেন ওই ছেলেটাকে।দুপাশ থেকেই ছেলেরা হাতাহাতি করছে।কয়েকজন থামানোর চেষ্টা করেও পারছে না।হটাত ওনার মুখে একটা ছেলে খুব জোরে ঘুষি মারলো।ঘুষিটা ওনাকে মারা হলেও আমার বুক কেপে উঠলো,যেন আমাকেই মেরেছে।ঘুষি খেয়ে উনি নিজেকে সামলাতে না পেরে নিচে গিয়ে পড়লেন।আমি তাড়াতাড়ি ওনার কাছে গিয়ে মাটিতে বসে পড়লাম,
–আপনার লাগেনি তো??ঠিক আছেন তো আপনি?
–নিহীন তুমি?এখানে?
–কোথায় লেগেছে দেখি।
–কিরে সৌভিক এটা আবার কে??প্রেমিকা নাকি?(আমি আড়চোখে ছেলেটার দিকে তাকালাম।যেই ছেলেটার সাথে ওনার প্রথমে ঝামেলা বেধেছে সেই ছেলেটাই।আমি আবার ওনার দিকে তাকিয়ে)
–অনেক ব্যাথা পেয়েছেন?
–তুমি এখানে এসেছো কেন?এক্ষনি বাইরে যাও।
–না যাবো না আগে আপনি উঠুন

উনি আমার হাত ধরে উঠে দাড়ালেন।তারপর ওই ছেলেটা কি যেন ইশারা করাই ওনার চোখ লাল হয়ে গেলো,হাত মুঠ করে ফেলেছে।রাগি চোখে আমার দিকে তাকিয়ে
–নিহীন যাও এখান থেকে
–না আপনাকে একটা জিনিস দেয়ার আছে
–নিহীন যাও
–নাআআ বললাম না আগে
–নিহীন গেট আউট
–না।আমি যাব না যাব না যাব না

ঠাসসসস,,আমি কথাটা বলার সাথে সাথে উনি আমাকে থাপ্পড় মারেন।আমি তো থ মেরে গেছি।
–আপনি আমাকে মারলেন?
–গেট লস্ট ড্যামিট
ওনার এই বিহেভিয়ারে খুব খারাপ লাগলো কেদে দিলাম আমি।উনি এখনো রেগে তাকিয়ে আছে।
–আপনি খুব খারাপ
কথাটা বলেই ব্যাগ থেকে ওনার জন্যে আনা শার্টের প্যাকেটটা ছুড়ে মারলাম ওনার বুকের ওপর তারপর চলে আসি।

বাসায় এসে অনেক কান্নাকাটি করলাম।সারাদিন কিছু খাইওনি।বাসার সবাই জিজ্ঞেস করছে কি হয়েছে কিন্তু কিছু বলছিও না।রাতে শুয়ে আছি মন খারাপ প্লাস রাগ নিয়ে তখনি ওনার কল আসলো।আমি কল কেটে দিয়ে ফোন সুইচড অফ করে রাখলাম।১০ মিনিট মতো পর,
–ফোন অফ করে রেখেছো কেন?
হটাত করে রুমে কারোর আওয়াজ পেয়ে আমি ভয় পেয়ে গেলাম।তাকিয়ে দেখি উনি বেলকনির দরজায় দাড়িয়ে।বেলকনির দরজা লক করতে মনে ছিলো না।উনি ঘরের ভিতরে এসে আমার বেডে বসে পড়লো।ওনাকে দেখে গায়ে ওড়না দিতে দিতে আমি উঠে দাড়ালাম।
–রাগ করে আছো কেন তুমি?আমি তো আর ইচ্ছা করে মারিনি তোমাকে।প্লিজ বোঝো ব্যাপার টা তখন
–আপনি আমার রুমে কি করছেন এখন?কোন সাহসে এসেছেন।এখনি বের হয়ে যান।
–আ’ম সরি নিহীপাখি
–ডোন্ট কল মি নিহীপাখি

উনি এবার আমার কাছে এসে আমার হাত ধরে ফেললেন,,
–একি হাত ধরছেন কেন?হাত ছাড়ুন
–সরি নিহীপাখি আসলে তুমি তখন হটাত করেই চলে এসেছিলে,ওখানে অনেক খারাপ ছেলে ছিলো।ওরা ভালো না,আমার শত্রু ছিলো অনেকেই আর ওরা যদি জানে আমি তোমাকে ভালোবাসি তোমার ক্ষতি করে দিতো।আদিল মানে যার সাথে আমার ঝামেলা হয়েছিলো সে তখন ইশারা করে খুব বাজে একটা কথা বলেছিলো।তাই তো আমার বেশি রাগ হয়ে গেলো।সরি
–………
–সত্যি বলছি
–রাগ হয়েছে বলেই মারতে হবে??(অভিমানি কন্ঠে)
–হ্যা হবে
–কি?(রাগ করে)
–না মানে আমার ভালোবাসার মানুষটিকে কেউ খারাপ মন্তব্য করলে আমার তো রাগ হবেই তাই না।বাট আই প্রমিস ইউ আর কোনদিন মারবো না।
–……
–সরি বললাম তো আমি প্লিজ
–সবার সামনে মেরে এখন নাটক করা লাগবে না।
–আমি নাটক করছি না।তুমি জানো আদিল কি বলেছিল?মন চাচ্ছিলো ওরে খুন করি
–কি বলেছিলো শুনি
–ও….না তোমার শোনা লাগবে না।খারাপ কথা,তুমি শুধু আর কোনদিন এভাবে হুটহাট করে যেয়ো না ওখানে।
–আমার লজ্জা আছে আর কোনদিন যাবো না।
–আবার রাগ করছো কেন?
–রাগ করছি না এবার যান।
–রাগ তো করছো।
–না
(সত্যি বলতে আমার এখনো রাগ আছে কিন্তু আমি বলছি না।ওই ছেলে কি বললো না বললো তাই বলে এইভাবে আমাকে মারবে।উনি সবসময় আমার সাথে বাজে ব্যবহার করে।এবার আর আমি ওনার সাথে ভালো করে কথা বলবো না।)
–সরি তো নিহীন।
–থাক আর সরি বলতে হবে না।যান এখন
–হুম যাবোই তো।তুমিও যাবে আমার সাথে
–আমিও যাবো মানে?
–তুমি যাবে মানে তুমি যাবে।
–আমি কই যাবো?
–আমার সাথে।চলো(আমার হাত ধরে উঠে দাড়ালেন)
–আমি কোথায় যাবো আর কেন যাবো?
–আগে চলোই তো
–না আমি আপনার সাথে যাবো না কোথাও ঘুম পেয়েছে ঘুমাবো।
–না যাবে।এখনি যাবে আর যদি না যাও আমি কিন্তু এখন তোমার আব্বুর কাছে চলে যাবো গিয়ে বলবো আমি তোমাকে ভালোবাসি আর তুমিও
–কি??
–ভেবো না মজা করছি।
উনি আরো অনেক কথা বললেন।বাধ্য হয়ে ওনার সাথে যাওয়া লাগবে কারন ওনাকে দিয়ে বিশ্বাস নেই,উনি যে ছেলে তা যেতেও পারে বাবার কাছে।বাবার কাছে যাওয়া মানেই তো আমার বিপদ।উনি বেলকনি দিয়ে যেতে গেলো আমি থামিয়ে বাড়ির পিছন গেট দিয়ে বের হলাম।বাইরে এসে দেখি ওনার গাড়ি দাড়িয়ে,ওনার গাড়িতে উঠে বসলাম।উনিও আমার পাশে বসলো।

চলবে…..
(দুঃখিত আমি নিয়মিত গল্প দিতে পারছি না।যেহেতু পরীক্ষার নিয়ে কিছু বলেনি তাই আমি নিয়মিত গল্প দিবো ইনশাআল্লাহ।দিনে দুইটা পার্ট করে দিয়ে কভার করে দেবো।ধন্যবাদ)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here