প্রেম_পাগলামি #নিহীন_রুবাইয়াত #পর্ব:১১

0
335

প্রেম_পাগলামি
#নিহীন_রুবাইয়াত
#পর্ব:১১

–এই নেন আপনার চা।

উনি হাত বাড়িয়ে চা নিলেন।শিবলি ভাইর সাথে আবার কথা বলা শুরু করলেন।আমি তখন এক পা দু পা পিছাচ্ছি আর হাসি আটকানোর চেষ্টা।শুধু ভাবছি একবার মুখে দে ব্যাটা তারপর বুঝবি।উনি এক চুমুক চা নিলেন,,
–ইয়াক থু…কি এনেছো এটা?
–কেন ভাইয়া চাআআআআআআআআআ….
–এটা চা না গুড়ের সরবত?আল্লাহ গো আল্লাহ…

(ওনার মুখের অবস্থা দেখে খুব হাসি পেলো।সবাই ভাবছেন তো উনি চিনি কম চা বলার পরও এতো চিনি কিভাবে আসলো?দুষ্টুমিটাতো এখানেই করেছি।
ফ্লাশব্যাক:

–মা দুইটা চা দিয়েন।
–আইচ্ছা খালা
–একটাই চিনি কম হবে আর একটাই স্বাভাবিক।

আমি চায়ের অর্ডার দিয়ে ওনাদের দিকে তাকিয়ে দেখি উনি কোন একটা কথা বলছেন আর খুব হাসছেন।শিবলি ভাই ও হাসছে।ওনার হাসি দেখে আরো রাগ বেড়ে গেলো আর মাথায় খেলে গেলো এক দুষ্টু বুদ্ধি|

–মামা শুনেন,আমার একটু ভুল হয়েছে।চিনি কম না বেশি হবে।
–আইচ্ছা।

আজ ব্যাটারে চিনি বেশি খাইয়ে মারবো।)

বর্তমান,,
–কি হয়েছে ভাইয়া আপনি এমন করছেন কেন??
–এতো মিষ্টি কেন চা?তোমাকে না বললাম চিনি কম আনবা।
–আমি তো চিনি কমই বলেছিলাম।দোকানদার কি শুনেছে কি জানি।

উনি চায়ের কাপ নিয়ে পেঁচার মতো তাকালেন আমার দিকে তারপর দোকানে গেলেন
–মামা কি দিছ এটা?এতো চিনি কেন?
–কেন মামা কি হয়েছে?
–চিনি কম দিতে বলা হয়েছিলো তো।
–কই মামা কেউ তো বলে যায়নি চিনি কম দিতে।
–কেন একটা ২০/২১ বছর বয়সী মেয়ে তো বলে গেলো।
–ওহ হ্যা হ্যা,,একখান আপা আইছিলো তো কিন্তু উনি তো কইয়া গেলেন মামা অনেক মিষ্টি হবে চা।

উনি আমার দিকে রেগে তাকালেন,আমি শুকনো ঢোক গিললাম।তারপর ৩২ দাতকপাটি বের করে হেসে দিলাম।আমার হাসিতে উনি হয়তো আরো খেপে গেলেন।আমি মনে মনে বেশ আনন্দ পেলাম।উনি রেগে আমার দিকে তেড়ে আসছিলেন কিন্তু ভাগ্য ভালো ম্যাডাম ডাক দিলেন,এখনি বাস ছাড়বে নাকি।আমি আর এক মিনিট ও অপেক্ষা না করে বাসে উঠে গেলাম।আমি সিটে বসেছি উনি ও বসলেন।উনি রাগে ফুসতেছে আর আমি মুখ টিপে হাসছি।

আধা ঘন্টা মতো পরে আমরা পৌছে গেলাম।বাস থেকে নেমেই আমরা তাবু বানিয়ে নিয়েছি থাকব বলে।প্রথমে গেস্ট হাউজ ভাড়া করা হলেও ওই অসভ্যটা নাকি বলেছে তাবু করে থাকতে হবে।ক্যাম্পাসের সবার পছন্দের ছাত্র বলে স্যার ম্যাডাম ও না বলতে পারিনি।গেস্ট হাউজের বাইরেই তাবু আমাদের কিন্তু খাওয়া দাওয়া গোসল সব গেস্ট হাউজেই।আমার একটু রাগ হলো।প্রথমত আমি আগে কোনদিন তাবুতে থাকিনি।আর দ্বিতীয়ত সবই যখন গেস্ট হাউজে তাহলে রাতটাও তো ওখানে থাকা যায়।একেক তাবুতে দুই জন করে থাকবে।আমি আর মীরা একটা তাবু নিয়ে নিয়েছি।ফ্রেশ হয়ে বাইরে বেরিয়েই দেখি পাশের তাবু থেকে শিবলি ভাই বের হচ্ছে।আমাদের দেখে দাড়িয়ে পড়লো উনি।

–আরে ফুলকলি তোমরা বুঝি এই তাবুতে?
–জ্বি
–যাক ভালোই,আমি আর সৌভিক তোমাদের পাশের টাতেই থাকবো।

কথাটা বলে উনি মুচকি হাসলেন,আমার তো মাথায় হাত,এখানেও পিছু ছাড়লো না এই পোলা।আমি আর মীরা থাকা অবস্থায় উনি তাবু থেকে বের হলেন।নেভি ব্লু টি-শার্ট,শর্ট জিন্স,আর ভেজা চুল কপালে এসে পড়েছে দেখে মনে হচ্ছে একটু আগেই গোসল করেছে।হাতে বেল্টের ঘড়ি পরতে পরতে বের হলো।ওনার এমন লুক দেখে আমি আর মীরা হা করে তাকিয়ে থাকলাম।উনি আমাদের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দিয়ে চলে গেলেন আমরা তাও তাকিয়ে থাকলাম।
–দোস্ত…
–হুউউম
–সৌভিক ভাই অনেক কিউট তাই না?ঠিক যেন চকলেট বয়।
–হুম,ক্রাশ খাওয়ার মতো।

আমার মুখে ক্রাশ কথাটা শুনে মীরা চোখ বড়বড় করে তাকাই।
–এই তুই কি বললি?
–কি বললাম?
–সৌভিক ভাই ক্রাশ খাওয়ার মতো?কিন্তু আমি জানতাম তুই ওনাকে সহ্য করতে পারিশ না।

আমি থতমত খেয়ে গেলাম।
–আ আমি কখন বললাম ওটা?তুই ভুল শুনেছিস
–না না নাআআআআআ..আমি ঠিক শুনেছি।তুই বলেছিস।
–না বলিনি।

আমি আর দাড়ালাম না ওখানে চলে গেলাম মীরাও আমার পিছু পিছু আমি বলেছি সেটা বলতে বলতে আসছে।সকালের নাস্তা করার পর এবার ঘুরতে যাওয়ার পালা।আমরা সবাই রেডি হয়ে দাড়িয়ে আছি।আমার চোখ বারবার ওনার দিকে যাচ্ছে।উনি হোয়াইট টি-শার্ট,থ্রী কোয়াটার প্যান্ট,চোখে ব্লাক সানগ্লাস হাতে ডায়ালের ঘড়ি।উফফ!!আমি তো ফিদা হয়ে যাচ্ছি।অনেক চেষ্টা করছি তাকাবো না কিন্তু তাও চোখ চলে যাচ্ছে।বাতাসে যখন ওনার চুলগুলো উড়ছে উনি ডান হাত দিয়ে চুলগুলো সরাতে ব্যস্ত এই মুহুর্তে ওনাকে আরো সুন্দর লাগছে।আমি নিজের চোখকে কন্ট্রোল করার জন্য চোখ সরালাম তারপর দেখি এখানে উপস্থিত সব মেয়েই ওনাকে চোখ দিয়ে গিলে খাচ্ছে।অবশ্য ওনার দুই মেয়ে বন্ধু তাকিয়ে নেই।মেয়ে গুলোর ওপর খুব রাগ হলো।

–আমার ক্রাশের দিকেই তাকানো লাগে সবার?(আনমনেই বলে ফেললাম)

কথাটা বলার সাথে সাথে জ্বিহবায় কামড় দিলাম।কি বললাম এটা আমি?ছি ছি।ওই অসভ্যটা কি করে আমার ক্রাশ হতে পারে?ইমপসিবল…নিহীন কি উল্টা পাল্টা ভাবছিস এ?ছি ছি ছি….

স্যার ম্যাডাম চলে এলেন।
স্যার:গুড মর্নিং গার্লস এন্ড বয়েজ।

–গুড মর্নিং স্যার।

–আই হোপ তোমরা সবাই ফ্রেস হয়ে নিয়েছো,নাস্তা ও হয়েছে এবার আমরা ঘুরতে বের হবো।

–ইয়েএএএএএএএ…….

–কুল গায়েজ কুল।

–স্যার আজ কোথায় কোথায় যাবো?

–আজ সারাদিন আমরা পাশের জঙ্গল টা ঘুরবো।

–হুরররররেএএএএএএএএ…(সবাই আনন্দে চিল্লিয়ে উঠলো)

–কিন্তু সবাই একসাথে থাকবে না।তোমরা ২০ জন ২ টা গ্রুপ করে নাও।

–ওকে স্যার।

–বাবা সৌভিক তুমি ডিসাইড করো দুইটা টিমে কে কে থাকবে।তুমি একটা টিমের গ্রুপ লিডার হও আরকেটা শিবলি হোক।

–ওকে স্যার।

–স্যার আমি আর সৌভিক এক টিমে থাকলে হয় না?আমি আর ও তো সবসময় এক সাথে থাকি,ওরে ছাড়া আমার ভালো লাগে না।(শিবলি ভাই মুখ শুকনো করে বলেন)

–আহ!শিবলি তুমি এমন কথা বললে হবে?তুমু যদি এমন কথা বলো জুনিয়াররা তো তাহলে আরো বাহানা করবে(স্যারের বকুনিতে ওনার মুখ আরো শুকিয়ে গেলো)বাবা সৌভিক এবার তাহলে দল ভাগ করো।

উনি স্যারের কথা মতো দুইটা ছেলে বেছে নিলেন তারপর শিবলি ভাই দুটো ছেলে বেছে নিলেন সৌভিক ভাই আবার দুটো ছেলে বেছে নিলেন বাকি দুটো ছেলে শিবলি ভাইর টিমে গেলো।এবার মেয়েদের চুজ করার পালা।সৌভিক ভাই খুব এটিটিউড নিয়ে সামনে আসলেন।কলারটা ঠিক করে,,

–সো গার্লস কে কে আমার গ্রুপে আসতে চাও হাত তোলো।

আমি বাদে সবাই হাত তুললো,মীরাও হাত তুলেছে।আমার যে ইচ্ছা করেনি তা না কিন্তু আমি হাত তুললাম না।উনি মুচকি হাসলেন।মেয়েরা তো হা হয়ে গেলো।ওনার মুচকি হাসিটাই কি আছে বুঝি না।সবাই ফিদা হয়ে যায়।উনি রুম্পা আপুকে ওনার গ্রুপে নিলেন আর টিনা আপু গেলো শিবলি ভাইর গ্রুপে।বাকি থাকলো আরো ৮ টা মেয়ে।সবাই চাচ্ছে ওনার গ্রুপে যেতে,সবাই মনে মনে হয়তো এটাই প্রে করছে উনি যেন তাকে চুজ করে।উনি এর মাঝেই বলে উঠলেন,

–হে ইউ,,মিস ব্লাক কুর্তি তুমি আমার গ্রুপে থাকবে।

সবাই আশেপাশে তাকালো কে ব্লাক ড্রেসে আছে দেখার জন্য।আমিও তাকালাম কিন্ত কাউকেই তো ব্লাক ড্রেসে পেলাম না।উনি এবার হাত দিয়ে ইশারা করলেন।

–হে ইউ কথা কানে যায় না?

ওনার হাতটা তো আমার দিকে।সবাই আমার দিকে তাকালো।আমি আশে পাশে তাকিয়ে নিজের ড্রেসের দিকে তাকিয়ে শকড,আমিই তো ব্লাক কুর্তি পরে আছি।উনি আমাকে চুজ করলেন।আমি কিভাবে রিয়াক্ট করবো বুঝতেছি না।

–তাড়াতাড়ি আসো।

–জ্বি

উনি আমাকে সিলেক্ট করাই অনেকে রাগি চোখে আমার দিকে তাকালেন।আমার খুব হাসি পেল।এক এক করে গ্রুপ ভাগ হয়ে গেলো।মীরা আছে শিবলিলি ভাইর গ্রুপে।স্যার ম্যাডাম আমাদের সাথে এলো না।আমরা দুই গ্রুপ আলাদা আলদা ঘুরতে বের হয়ে গেলাম।আমি আর রুম্পা আপু বাদে গ্রুপের বাকি তিনটা মেয়ে তো ওনার গায়ের সাথে চিপকে আছে একদম।ওনার ডি.এস.এল.আর এ সবার ছবি তুলে দিচ্ছে আশে পাশের প্রকৃতির ছবি ও তুলছে উনি।আমি আছি নীরব দর্শকের মতো।মীরাকে মিস করছি ও থাকলে বোর লাগতো না।আবার শাওন থাকলেও হয়তো ভালো হতো।আমরা অনেকক্ষন ঘুরে একটা নদীর কাছে এলাম।উনি আমাদের সবাইকে এখানে কিছুক্ষন বিশ্রাম নিতে বললো,যে যার মতো বসল।এরি মাঝে উর্মি নামের থার্ড ইয়ারের মেয়েটা ওনার কাছে গিয়ে হাত জড়িয়ে ধরলো,

–ভাইয়া ভাইয়া ওইখানে দাড়িয়ে আমার একটা ছবি তুলে দেন না প্লিজ…

মেয়েটা এভাবে হাত ধরায় উনি হয়তো আনকমফোর্টেবল ফিল করলেন।হাত ছাড়ানোর চেষ্টা করলেন।কিন্তু মেয়েটা কথা শুনার বান্দি না ওনাকে রিতীমতো জোর করছে।উনি বিরক্ত হচ্ছে তাও মেয়েটা হাত ছাড়ে না।ব্যাপারটা আমার একটু ভালো লাগলো না।কেউ যখন চাইছে না তখন তাকে এতোটা জোর করার কোন মানেই হয় না।মেয়েটার দিকে রাগ নিয়ে তাকিয়ে আছি।উনি হটাত আমার দিকে তাকালেন।আমার রাগি লুকটা ওনাকেউ দিলাম।উনি মিচকি হেসে চোখ সরিয়ে নিলেন।তারপর,,

–আচ্ছা চল তোমার ছবি তুলে দিই।

উনি মেয়েটার হাত ধরে নদীর পাড়ে গিয়ে ছবু তুলে দিচ্ছে।হাত দিয়ে এংগেল ঠিক করে দিচ্ছে,পোজ নিতে বলছে।মেয়েটা তো খুশিতে গদগদ।উনি মেয়েটার চুল ঠিক করে দিচ্ছে,ঘাড়ে হাত দিয়ে এভাবে ওভাবে দাড়াতে বলছে।আর এদিকে আমার রাগ ততো বাড়ছে,কেন রাগ হচ্ছে আমার জানা নেই।উনি একবার আড়চোখে আমার দিকে তাকালেন আমার মুখ দেখার পর উনি আরো বেশি চিপকে থাকলেন মেয়েটার সাথে।সারাদিন ঘুরলাম আমরা মেয়েটা ওনার সাথে আঠার মতো লেগে ছিলো উনিও খুব হেসে হেসে কথা বলেছে।আমি বার বার ওনাদের দেখেছি আর কোন অজানা কারনেই মন খারাপ আর রাগ করেছি।সন্ধ্যা বেলা আমরা তাবুতে ফিরি।রাতে ডিনার শেষ বাইরে হৈচৈ শুনতে পাই।আমি আর মীরা শুয়ে ছিলাম তাবুর ভিতর,রুম্পা আপু এসে আমাদের ডেকে যায় বাইরে নাকি গানের আসর বসেছে আর তার সাথে কাঠ দিয়ে আগুন জালানো তো আছেই।মীরা খুব এক্সাইটেড হয়ে বেরিয়ে আসলো,আমার মনটা এখোনো খারাপ তাও সিনিয়র এসে ডেকে গেছে তাই বাধ্য হয়ে গেলাম।
আমি মীরা পাশাপাশি বসলাম।আশেপাশে চোখ ঘুরালাম কিন্তু ওই অসভ্যটাকে দেখলাম।রুম্পা আপু শিবলি ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে বলে উঠলো,

–এই শিবলিলি সৌভিক কই ওরে ডাক দে।ও না আসলে তো প্রোগ্রাম শুরু করা যাবে না।

শিবলি ভাই ডাকার আগেই উনি তাবু থেকে বের হয়ে এলেন।

–হে গাইস তোমরা চলে এসেছো..
–হ্যা ভাই অনেক আগেই(রুম্পা আপু উত্তর দিলো)
–তাহলে বসে আছিস কেন প্রোগ্রাম শুরু না করে?
–আপনার জন্যই স্যার,যতোই হোক আপনি হলেন ক্যাম্পাসে ফেমাস বয় লাইক সেলিব্রেটি।আপনাকে বাদ দিয়ে কি শুরু করা যায়?
–শিবলি ফাও বকিস না তোর জন্যই ভালো হবে সেটা।

রুম্পা আপু এবার উঠে দাড়ালেন।
–উফফ।।তোরা থাম তো অনেক হয়েছে এবার শুরু করা যাক।আমাকে এনাউন্স করতে দে।
–তুই করবি?(শিবলি ভাই ভ্রু কচুকে বলেন)
–হুম আমি করবো।কেন তোর সমস্যা?
–না না আমার কি সমস্যা?কর যা করবি।

রুম্পা আপু খুব সুন্দর করে এনাউন্স করে যে আমাদের এই ট্যুরে এখন গানের আসর বসবে সবাইকে গান গাওয়া লাগবে কেউ চাইলে কবিতাও বলতে পারে।সবাই হাত তালি দেই।রুম্পা আপু ধন্যবাদ জানিয়ে বসে পড়ে।

শিবলি এবার বলে ওঠে,
–আচ্ছা গাইজ তাহলে আমিই গান শুরু করি।

রুম্পা আপু,টিনা আপু আর সাদাফ ভাইয়া এক সাথে বলে ওঠে,
–নাআআআআআআআয়আ….
–কেন?
–তোর গান শুনলে এখানে কেউ আর ভালো থাকতে পারবে না।হয় অজ্ঞান হয়ে যাবে তা না হলে আশপাশ থেকে যে কুকুর ছুটে আসবে তার তাড়া খাবে।(টিনা আপু কথাগুলো বলে হেসে দেয়)
–এই এই তুই এভাবে বললি কেন?আমি কি খারাপ গাই?
–যে সুন্দর গাও তুমি,আমার মনে আছে ফার্স্ট ইয়ারে তোর গানের ঠেলায় একবার কুত্তা তাড়া করেছিলো আমাদের(রুম্পা আপু কথাটা বলেই বুকে হাত দেয়)

সবাই হেসে দেয়।উনি রাগ করে বলে,
–ঠিক আছে গাইবো না যা।জুনিয়র দের সামনে এতো অপমান আর নেয়া যায় না।টিনা তুই গা বরং তোর গানের গলা তো ভালো।

টিনা আপুকে আমরা সবাই জোর করি।টিনা আপুর গলা সত্যিই অনেক সুন্দর এর আগেও ওনার গান শুনেছি।

টিনা আপু আমারো পরানো যাহা গানটা শুরু করলেন আর সাদাফ ভাই গিটার বাজাচ্ছিলেন খুবই চমতকার লাগছিলো ওনার গান শুনতে।ওনার গান শেষে আরো কয়েকজন গান গাইলেন কবিতাওও বললেন কয়েকজন।রুম্পা আপু এবার আমার দিকে তাকালেন,

–নিহীন তুমি এবার একটা গান গাও।
–আমি?
–হ্যা তুমি।
–না না আপু আমি পারবো না।
–পারবো না বললে হবে না তোমাকে গাইতেই হবে।
–আমি পারিনা আপু।
–এই নিহু মিথ্যা বলছিস কেন তুই তো গান পারিস স্কুলে,কলেজে তো কতো গান গেয়েছিস,প্রাইজ ও পেয়েছিস।

আমি মীরার হাতে চিমটি কাটলাম।এবার রুম্পা আপু আরো চেপে ধরলো আমায় সাথে টিনা আপু,শিবলি ভাইয়াসহ সবাই কিন্তু ওই অসভ্য টা চুপ থাললো।বাধ্য হয়ে আমাকে ওকে বলতে হলো।শিবলি ভাইয়া সাদাফ ভাইয়ার থেকে গিটার নিয়ে নিলেন।
–ফুলকলি তুমি গাও আমি গিটার বাজাচ্ছি

আমি চোখ বন্ধ করে গাওয়া শুরু করলাম,

আজ ঠোটের কোলাজ থামালো কাজ মন তোমাকে ছুয়ে দিলাম,
না বুকের বোতাম হারানো খাম আজ কেন যে খুজে পেলাম………
দিন এখনো রঙিন,এ দিন এখনো রঙিন তাকে আদরে তুলে রাখলাম..
ওও আজ ঠোটের কোলাজ থামালো কাজ মন তোমাকে ছুয়ে দিলাম,
না বুকের বোতাম হারানো খাম আজ কেন যে উহুমউউউ….

মন রাখা আছে কোন ইশান কোনের বিষন্নতাই,চোখ কাটাকুটি হোক,সহজ খেলার সময় কোথায়????
এই নরম অসুখ হাওয়া হাওয়ায় সেরে যাক,ফের সন্ধ্যে নামুক,ব্যাথা তোমায় ছেড়ে যাক..
চুপ মুহুর্ত চুপ ঠোটের তুরুপ এই তোমাকে ছুয়ে দিলাম,না বুকের বোতাম হারানো খাম আজ কেন যে খুজে পেলাম……..

___________________________

___________________________

___________________________

গান শেষ করার সাথে সাথে হাততালি শব্দ পেলাম চোখ খুললাম সবাই হাত তালি দিচ্ছে।অনেক ভালো গেয়েছি জানাচ্ছে শুধু মাত্র একটা ব্যাক্তিই চুপচাপ বসে আছে।
পরবর্তী পর্ব পড়তে ভালোবাসার রোমান্টিক গল্প পেইজে লাইক দিয়ে সাথেই থাকুন।।
চলবে………….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here