প্রেম_পাগলামি #নিহীন_রুবাইয়াত #পর্ব:১৫

0
305

#প্রেম_পাগলামি
#নিহীন_রুবাইয়াত
#পর্ব:১৫

–শাওন তুমি?

ও আমার দিকে তাকিয়েই যেন ফ্রিজড হয়ে যায়।ওর মুখ দেখে বোঝায় যাচ্ছে ও আমাকে এখানে এক্সপেক্ট করিনি।কিছুক্ষন তাকিয়ে থাকার পর ও স্বাভাবিক হয়ে গেলো,,
–হাই নিহীন।হুয়াটস আপ?
–ফাইন বাট তুমি এখানে??

সৌরভ ভাইয়ার মা জিজ্ঞেস করেন,
–শাওন বাবা তোরা একে অপরকে চিনিস নাকি?
–হ্যা মানে বড়মা ওই আর কি।আমরা এক কলেজে পড়ি।
–ওহ ভালো।তাহলে সৌভ…..
–হ্যা হ্যা বড় মা ভাই,আমি আর নিহীন একি কলেজ।(শাওন জোর করে হাসার চেষ্টা করে)

–আচ্ছা মা তুমি বসো,আমি একটু রান্না ঘর থেকে আসছি।
উনি আমার মাথায় হাত বুলিয়ে রান্নাঘরের দিকে যায়।

আমি এবার শাওনের দিকে তাকাই,ও একদম চোরের মতো তাকিয়ে আছে।আমার দিকে আড়চোখে তাকাচ্ছে আর মনে মনে কি যেন বিড়বিড় করছে।আমি চোখ বড়বড় করে ওর দিকে তাকিয়ে রইলাম।
–নিহীন আসলে আমি তোমাকে জানাতাম কিন্তু
–কিন্তু কি শাওন??(আমি চিল্লিয়ে উঠি সবাই তাকিয়ে পড়ে)
–নিহীন কোন সমস্যা নাকি মা??
–না বাবা কোন সমস্যা না।
(সবাই আবার যে যার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে)
–শাওন তুমি সৌরভ ভাইয়ার ভাই এটা আমাকে আগে বলোনি কেন??জানো আমি কতোটা শকড হয়েছি?
–বড় ভাইয়ার কথা শুনে তুমি এতো শকড তাহলে ওর কথা শুনলে তো….
–ও মানে?
–না না কেউ না।প্লিজ নিহীন প্লিজ তুমি কিছু মনে করো না।আসলে তোমার বড় ভাইয়াই আমাকে মানা করেছিলো তোমাকে সারপ্রাইজ দেবে তাই।হিহিহিহিহহহহহহ…
–বুঝলাম না আজব সারপ্রাইজ এর কি আছে এখানে??আমরা একে অপরকে এতোদিন চিনি কিন্তু তুমি বললেও না ব্যাপার টা।আমি গতদিন বললাম তাও তুমি এমনভাব নিলে যে কিছুই জানো না যেখানে তুমি সবটাই জানো।আমাকে এভাবে ঠকালে শাওন।তুমি এমনটা করবে ভাবিনি আমি।ইউ হার্ট মি শাওন।

আমি উঠে গিয়ে বাবার পাশে বসলাম।বাবারা আমাদের থেকে বেশ দুরেই ছিলো।শাওন আমার দিকে লজ্জাবোধ নিয়ে বেশ কয়েকবার তাকিয়েই হটাত করে কি মনে করে দৌড়ে উপরে চলে গেলো।

শাওন এখন সিড়ি বেয়ে এতোটাই উপরে উঠছে যে ভাগ মিলখা ভাগ মুভিতে ফারহান আক্তার ও অতোটা জোরে দৌড়াইনি।শাওন কারোর একটা ঘরে ঢুকতে যাবে কিন্তু কারোর সাথে ধাক্কা খেয়ে মাটিতে ঢপাস,অপর পাশের লোকটিও ঢপাস করে মাটিতে পড়লো।
চোখ ডলতে ডলতে তিনি বলেন,
–শানু দেখে চলতে পারিস না,এরকম স্প্যানিশ বুলের মতো তেড়ে আসছিস কেন??
–ভাই কেলেঙ্কারি হয়ে গেছে রে।
–আরে ধুর তোর কেলেঙ্কারি।সর আমি নিচে যাবো খুদা পাইছে কিছু খেতে হবে।
(লোকটি উঠে শাওনকে ডিঙিয়ে যেতে যায় কিন্তু শাওন হাত ধরে ফেলে)
–ভাই যাস না ভাই যাস না।
–শানু কি করছিস হাত ছাড়।
–ভাই তোর খোদার কছম তুই এখন নিচে যাসনা।
–মানেটা কি?এই তুই কি পাগল টাগল হয়ে গেলি নাকি??
–আমি পাগল হয়নি কিন্তু তুই যদি এখন নিচে যাস অন্য কেউ পাগল হবে আমি সিউর।আর তার শোকে তুইও পাগল হবি।
–শানু ফালতু ইয়ারকি মারবি না।সর,,
(লোকটি শাওনের পায়ে হালকা করে লাথি দিয়ে হাত ছাড়িয়ে নেই তারপর নিচে আসার জন্য রুম থেকে এক পা বাড়ায়)
–নিচে নিহীন,যাবি যা।আমার কি?
(নিহীন নামটি শুনে লোকটি আর পা বাড়াতে পারে না।শাওনের দিকে করুন চোখে তাকাই।শাওন কলার ঝাকিয়ে একটা হাসি দেয়।লোকটি এসে মাটিতে শাওনের পাশে বসে পড়ে।)
–ভাই আমার,ছোটু আমার তুই কি ইয়ারকি মারছিস ভাই?
–জে না ভাইইইইইইইইইইইই…
–আল্লাহ!ও কেন আসলো?
–শুধু ও না ওর বাপ-ভাই ও আইছে।
–কিন্তু কেন?
–দাওয়াত আজ ওদের আমাদের বাসায়।
–কি??
–হুউউউউউউম
(লোকটি মাথায় হাত দিয়ে বসে থাকলো আর শাওন হোহোহহহহহ করে হাসছে।)

আমি নিচে বসে বসে ভাবছি শাওন কেন করলো এমন।আমার খুন রাগ হচ্ছে সাথে কান্নাও পাচ্ছে।আমি তো শাওনকে অনেক ভালো বন্ধু ভাবতাম কিন্তু ও কেন করলো এমন ও??আমার বিশ্বাস নিয়ে খেললো ও।আমি ওকে ক্ষমা করবো না।আমার খুব কান্না পাচ্ছে এমন সময় সৌরভ ভাইয়ার দাদু আসলো,
–কি ব্যাপার দিদুন তুমি এখানে একা বসে আছো কেন?তোমার কি কোন কারনে মন খারাপ??
–না না দাদু মন খারাপ হবে কেন??আমার মন ভালো আছে।
–ও,তাহলে ঠিক আছে।দিদুন তুমি আর শাওন কি একে অপরকে আগে থেকেই চিনতে?না মানে তখন ওভাবে চিল্লিয়ে উঠলে তো….
–…………….
–তুমি আমাকে বলতে পারো দিদুন।
–দাদু আসলে….
–ব্যক্তিগত কিছু??
–না না দাদু তেমন কিছু না।আসলে আমি আর শাওন খুব ভালো বন্ধু,একি ভার্সিটিতে পড়ি কিন্তু ও আমাকে আগে থেকেই চিনতো কিন্তু সৌরভ ভাইয়া যে ওর ভাই তা আমকে আগে কোনদিন বলিনি।
–কি বলছো দিদুন?ও তোমাকে জানাই নি?
–না
–ও তোমার কাছে এতো বড় কথা লুকালো?তাহলে তো তুমি মেজ সাহেব কেউ চেনো না হয়ত।কি একটা কান্ড বলতো,,একি সাথে পড়ো কিন্তু তুমি জানলেই না ওরা তোমার বড় বোনের দেবর হয় তা।অবশ্য ওরাই তো তোমাকে বলিনি,দোষ তো তোমার না।দাড়াও ওদের ব্যবস্থা করছি।
(দাদুর ওরা কথাটা ঠিক বুঝলাম।ওরা বলতে কি বুঝালো আর এই মেজ সাহেব টাই বা কে?)
–দাদু ওরা মানে বুঝলাম না তো।মানে মেজ সাহেবটা কে?
–তুমি আমাদের মেজ সাহেব কে চেনো না?শাওনের আগের জনটা।শুনেছি ভার্সিটির সব মেয়ে নাকি ওর ওই সাদা চামড়ার পাগল।
–দাদু একটু ক্লিয়ার করে বলবেন কি?আর তাছাড়া আমি তো জানতাম সৌরভ ভাইয়ারা দুই ভাই।
–হ্যা ওরা দুই ভাই তো।
–তাহলে বড়,ছোট,মেজ এসবের মানে ঠিক।
–আরে সৌভ
–দাদুউউউউউউউউউউউউউউউউউউউউউউউউউউ

শাওন চিল্লিয়ে ওঠে,আমি আর দাদু ভয় পেয়ে যায়।
–ছোট সাহেব তুমি চিল্লাচ্ছো কেন?
–দাদু তোমার না এখন টিভি দেখার সময় যাও যাও টিভি দেখো।
–না আজ আর টিভি দেখবো না।তুই এদিক আই আগে।
(শাওন এসে দাদুর পাশে বসে।দাদু তখন শাওনের কান মোড়া দেয়)
–আউচ আউচ দাদু কি করছো কি এটা?ব্যাথা লাগছে তো
–লাগুক ব্যাথা।ব্যাথা পাওয়ার জন্যই তো ধরেছি।এরকম ফুলের মতো একটা বাচ্চা মেয়েকে তোরা এভাবে ঠকালি,ওরে বললিই না।দেখ তো মেয়েটা কতোটা কষ্ট পেয়েছে।
(এভাবে শাওনের কান মোড়া দিয়াই আমার বেশ হাসি পাই কিন্তু আমি হাসি না।মুখ গোমড়া করে বসে থাকার এক্টিং করি।কারন শাওন আমার সাথে যেটা করেছে সেটা অন্যায়)
–দাদু আগে আমার কথাটা তো শোনো।
–বল কি বলবি বল
–তার আগে কানটা ছাড়ো প্লিজ খুব ব্যাথা লাগছে।প্লিজ দাদু।
–না কান ছাড়বো না।
–নিহীন প্লিজ দাদুকে বলো আমার কান ছেড়ে দিতে।সত্যি বলছি অনেক ব্যাথা লাগছে।
(আমার মনে মনে শাওনের অবস্থা দেখে খুব হাসি পাচ্ছে।মনে মনে তো বলছি ঠিক হচ্ছে,তোমার আরো বেশি শাস্তি পাওয়া দরকার।কিন্তু তাও ওর মুখ দেখে মায়া হলো)
–দাদু ওর কান ছেড়ে দেন
–না দিদুন ওরা যেটা করেছে সেটা অন্যায়।
–তাও ছেড়ে দেন দাদু।
(দাদু ওর কানটা ছেড়ে দেয়)
–দেখ মেয়েটা কতো ভালো।আর তোরা এভাবে…
–দাদু তোরা বলতে বার বার কি বোঝাচ্ছেন বুঝতে পারছি না।
–আরে শানু মানে শাওন আর সৌ..
–সৌরভ,দাদু সৌরভ বলতে চাইছে নিহীন।ভাইয়াই মানা করেছিলো।
–কি?সৌরভ(উনি কথা শেষ করতে পারেন না।
–আব্বা এদিকে আসেন(সৌরভ ভাইয়ার মা ডাক দেয় উনি চলে যায়)

ধুর,দাদু কথা শেষ করতে পারলো না।এই বাসায় সব কিছুই কেমন যেন পেচালো।শাওন আর সৌরভ ভাইয়া ভাই।আবার কোন মেজ সাহেব এটা আবার কে?শাওনি বা এমন বিহেব করছে কেন?আর আপু যতটুকু বলেছিলো সৌরভ ভাইয়ারা ২ ভাই।আমার মাথা ঘুরছে,কি হচ্ছে এগুল আমার সাথে।
শাওন আমার দিকে তাকিয়ে মিচকি মিচকি হাসলো,যদিও আমি দেখলাম না।আমার আড়ালেই উপরের দিকে তাকিয়ে কারোর দিকে হাত দিয়ে ইশারা করলো সব ঠিক আছে।উপরে দাড়িয়ে থাকা লোকটা আমার দিকে একবার তাকিয়ে বুকে হাত দিয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেললো।উপরে দাড়িয়ে থাকা লোকটি বললো
–সরি নিহীপাখি এখনি সত্যিটা তোমাকে জানাতে পারবো না।সময় হোক আমি নিজেই তোমার কাছে ধরা দেবো।

নিচে বসে শাওনের দিকে রাগি লুক দিলাম।ও অনেক বার সরি বললো,বার বার সেই এক কথা আমাকে নাকি সারপ্রাইজ দিতে চাইছিলো।আমার মন কেন যেন মানতে চাইলো না কথাটা কিন্তু আমি ওর ওপরেও রাগ করে থাকতে পারলাম না।আমার এই এক ভালো দিক আবার সমস্যাও আমি কারোর ওপরি বেশিক্ষন রাগ করে থাকতে পারিনা। রাতে সবার সাথে ডিনার করলাম দাদু,সৌরভ ভাইয়ার বাবা বারবার মেজ সাহেব নাম নিচ্ছিলেন কিন্তু শাওন প্রতিবারি বলছে ভাই পরে খাবে।ও পড়াশুনা করছে ওরে যেন কেউ ডিস্টার্ব না করে।এরপর কেউ আর এই মেজ সাহেবটার কথা বললো না।আমার মনের ভিতর কেমন লাগছে।আপু এতোদিন মিথ্যা কেন বললো যে সৌরভ ভাইয়ারা ২ ভাই,ওনারা তো ৩ ভাই।আর ওদের মেজ ভাইটাই বা কে?আমাদের ভার্সিটিতে পড়ে আবার নাকি মেয়েদের ক্রাশ।মেয়েদের ক্রাশ কথাটা মাথায় আসতেই আগে সৌভিক ভাইর কথা মনে পড়লো।না না এটা কিভাবে সম্ভব?উনি হতে পারেন না আর তা ছাড়া ভার্সিটিতে তো আরো অনেক সুন্দর ছেলে আছে।কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার শাওনকেউ তো কোনদিন কোন সিনিয়র ভাইর সাথে সেভাবে দেখিনি।হচ্ছেটা কি এসব আমার মাথায় কিচ্ছু ঢুকছে না।

শাওনের সাথে আর কথা বললাম না।রওনা নিলাম ওদের বাসা থেকে।গাড়িতে বসে ভাবছি কখন বাসায় পৌছাবো।ওই বাসা থেকে তো কিছুই জানতে পারলাম না এখন আপুই সব সত্যিটা বলতে পারবে।গাড়িতে বসে ঘুমাই গেলাম।ঘুম ভাংলো বাবার ডাকে।

–নিহী ওঠো মা,বাসায় চলে এসেছি।

আমি চোখ মেলে তাকালাম।বাসায় এসেছি শুনি তাড়াতাড়ি গাড়ি থেকে নেমে আপুর রুমে চলে গেলাম।আমাকে আজি সব জানতে হবে।কিন্তু আপুর রুমে গিয়ে লাভ হলো না।ওর নাকি খুব মাথা ব্যাথা করছিলো তাই ঘুমিয়ে পড়েছে।আমার মনটা খারাপ হয়ে গেলো।রাতে ঘুম হলো না,অপেক্ষা কখন সকাল হবে।সকালে নিলু আপুর কাছে শুনবো।ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমিয়ে গেছি বুঝতে পারিনি।ঘুম ভাংলো দাদির ডাকে।উঠে দেখি ৮ টা বেজে গেছে প্রায়।আমি আপুর রুমে গেলাম কিন্তু পেলাম না।অবশ্য পাওয়ার ও কথা না।রবিবারে ও ৬ টাই বের হয়ে যায় ভার্সিটির জন্য।আমার খেয়াল ছিলো না রবিবার আজ ওর রুমে যেয়ে ওরে না দেখে খেয়াল হলো।মেজাজ গরম হয়ে গেল খুব।ক্লাসের সময় হয়ে যাওয়ায় না খেয়েই ভার্সিটির জন্য বের হলাম।ভার্সিটিতে যেয়ে আজ শাওনকে ধরব,ওরে বলাই লাগবে সব।

আমি শাওনকে খুজছি কিন্তু হটাত করে সামনে শিবলি ভাইয়া চলে আসে।
–এই ফুলকলি কেমন আছো?

এমনিতেই মন মেজাজ ভালো না।তারপর ওনার মুখে ফুলকলি ডাক শুনে আরো রাগ হলো।

–কি হলো ফুলকলি চুপ কেন?
–আপনি আমাকে ফুলকলি বলেন কেন হ্যা?আমার নাম কি ফুলকলি নাকি আমার কোন নাম নেই যে এই নামে ডাকা লাগবে?সিনিয়র বলে যা না তাই বলে ডাকবেন??আপনারা আসলেই অনেক অসভ্য,কাউকে মানুষ বলেই মনে করেন না।মানুষ হয়ে আর একজন মানুষের সাথে অমানুষের মতো ব্যবহার করেন। আর একদিন যদি আমাকে এসব নামে ডাকেন তাহলে খবর আছে।

উনি আমার আচারনে বেশ অবাক হয়েছেন হয়তো।উনি মাথা নিচু করে বলেন,,
–সরি নিহীন।আমি আর কোনদিন বলবো না।আমি শুধু এটা বলতে এসেছিলাম সৌভিক তোমাকে ক্যান্টিনে ডাকছে।

উনি কথাটা শেষ করে আর দাড়ায় না। চলে গেলেন।আমার ব্যবহারে হয়তো অনেক কষ্ট পেয়েছেন।ধুর আমি শুধু শুধু অন্যের রাগ ওনার ওপর ঝাড়লাম।খুব রাগ হচ্ছে এবার নিজের অপর।

চলবে…….
(কোন ভুলত্রুটি হলে ক্ষমা করবেন।আর নেক্সট নেক্সট না করে গল্পটা কেমন লাগছে সেটা জানালে বেশি খুশি হবো।ধন্যবাদ)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here